1. admin@bazzrokolom.com : bazzrokolom.com :
রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন

কাঁচা মরিচে আগুন!

  • প্রকাশিত: বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০
  • ৫৫ বার পড়া হয়েছে

এস পারভেজঃ বাংলাদেশে মরিচ মসলা হিসেবে বেশি পরিচিত। তবে মরিচ কিন্তু একটি অর্থকরী ফসল। কাঁচা মরিচে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ ও সি রয়েছে। এ দেশে কাঁচা ও পাকা মরিচের ব্যাপক চাহিদা। প্রতিদিনের রান্নায় রঙ, রুচি ও স্বাদে ভিন্নতা আনার জন্য মরিচ প্রযোজন। আমাদের দেশে মূলত মরিচ ছাড়া কোন তরকারির রান্না চিন্তা করা যায় না। এমনকি পান্তা ভাতে ও যেকোন ভর্তা তৈরিতে মরিচ দরকার। কিন্তু তরকারির বাজারে মরিচে আগুন লেগেছে। করোনা পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা তেমন ভাল না হলেও বেশি দামে মরিচ কিনতে হচ্ছে। এ মূল্য বৃদ্ধি তাদের উপর বাড়তি একটি চাপ। এ প্রতিবেদক বুধবার (৫ আগস্ট) যশোর শহরের চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড বাজার ঘুরে দেখতে পায় কারেন্ট ঝিয়া ও কালো ঝিয়া নামে দুই ধরণের মরিচ বিক্রি হচ্ছে।

হাজী শাহ আলম স্টোর, ইলিয়াস স্টোর, ও ইসলাম স্টোরসহ অন্য বড় দোকানে খুচরা মুল্যে কালো ঝিয়া ও কারেন্ট ঝিয়া বিক্রি হয় ১৬০ টাকা প্রতিকেজি। তবে অধিকাংশ দোকানে কারেন্ট ঝিয়া মরিচ দেখতে পাওয়া যায়। রাস্তার পাশে টোঙ দোকানে কারেন্ট ঝিয়া বিক্রয় হয় ২৫০ গ্রাম ৩৫ টাকা আর কালো ঝিয়া ৪০ টাকা। পায়কারি ব্যবসায়ী থেকে জানা যায়, কালো ঝিয়া পায়কারি দর প্রতিকেজি ১৫০ টাকা আর কারেন্ট ঝিয়া প্রতিকেজি ১৩০ টাকা। খুচরা বিক্রেতা মোঃ ইসহাক জানায়, বৃষ্টি ও বন্যার কারণে ফরিদপুরের মধুখালীর কালো ঝিয়ার দাম বেড়ে গেছে। আর কারেন্ট মরিচটি পাশ্ববর্তী ভারত থেকে আনা হচ্ছে। অন্য খুচরা বিক্রেতা জানান, মরিচের দাম আগামীকাল (৬ আগস্ট) থেকে বেড়ে যেতে পারে। বাজারে কারেন্ট ঝিয়া মরিচ না থাকলে মরিচের দাম প্রতিকেজি ৫০০ টাকা হতো। ক্রেতা রফিকুল ইসলাম জানান, প্রায় দুইমাসের অধিক মরিচের মুল্য বেশী। আগে মরিচ এক পোয়া কিনতাম ১৫ থেকে ২০ টাকায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার